Home / ত্বকের যত্ন / শীতে ত্বকের শুষ্কতা কমাতে বিভিন্ন ফলের ফেস প্যাক

শীতে ত্বকের শুষ্কতা কমাতে বিভিন্ন ফলের ফেস প্যাক

শীতকালের হাত ধরেই আসে ত্বকের শুষ্কতা ও নানান ধরণের সমস্যা। শুষ্ক আবহাওয়ার দরুন ত্বক তার স্বাভাবিক কোমলতা হারিয়ে ফেলে। ত্বক অন্যান্য সময়ের চাইতে অনেক বেশী শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে ওঠে। ত্বকের এই অতিরিক্ত শুষ্কভাব কমানোর জন্য বিভিন্ন ধরণের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করলেও খুব একটা উপকার পাওয়া যায় না। এক্ষেত্রে দারুণ কিছু ফলের ফেসপ্যাক ব্যবহার খুব কার্যকরী হয়। প্রাকৃতিক এসব উপাদানে রয়েছে ত্বকে পুষ্টিদানকারী অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস, যা ত্বকের একদম গভীর থেকে পুষ্টি জোগায় ও আর্দ্রতা রক্ষায় কাজ করে। আজকের ফিচারে তেমন কিছু দারুণ প্রাকৃতিক ফল দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরির উপায় জানানো হলো। শীতে ত্বকের শুষ্কতা দূর ও আর্দ্রতা বজায় রাখতে ব্যবহার করতে পারেন এসব ফেসপ্যাক।

ডালিমের ফেসপ্যাক

এক চা চামচ পরিমাণ ডালিমের রসের সাথে আধা চা চামচ পরিমাণ ময়দা মেশাতে হবে। মিশ্রণটি পুরো মুখে ভালোভাবে মাখিয়ে নিয়ে ১০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিত্যদিনের ব্যবহৃত টোনার দিয়ে মুখ মুছে নিতে হবে। এক মাসের মাঝে দুইবার এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করা যথেষ্ট।

কমলালেবুর ফেসপ্যাক

প্রথমে দুই চা চামচ পরিমাণ অ্যালোভেরা জেল এবং এক চা চামচ পরিমাণ কমলালেবুর রস নিতে হবে। দুটি উপাদান একসাথে ভালোভাবে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। দশ মিনিট পর মুখের সাথে মানানসই কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। এরপর মুখে ভালো কোন ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম বা লোশন মেখে নিতে হবে। প্রতি সপ্তাহে একবার এই ফেসপ্যাক ব্যবহারে ত্বকের শুষ্কভাব একেবারেই কমে যাবে।

কলার ফেসপ্যাক

একটি পাকা কলা প্রথমে ভালোভাবে চটকে নিতে হবে। এরপর তার সাথে এক চা চামচ পরিমাণ নারিকেল তেল ভালোভাবে মেশাতে হবে। মিশ্রণ তৈরি হয়ে গেলে তা পুরো মুখে মাখিয়ে নিতে হবে। ফেসপ্যাকটি সম্পূর্ণভাবে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। শুকিয়ে গেলে কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধীরে ধীরে ধুয়ে নিতে হবে। মুখ ধোয়ার পরে হাতের আঙ্গুল দিয়ে মুখে হালকা চেপে চেপে মুখের পানি শুকিয়ে ফেলুন এবং এরপর ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। সপ্তাহে অন্তত দুইবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে।

আপেলের ফেসপ্যাক

একটি আপেলের চার ভাগের এক ভাগ পরিমাণ নিতে হবে। আপেলের টুকরোটি ভালোভাবে থেঁতো করে এরপর সাথে এক চা চামচ পরিমাণ মধু মেশাতে হবে। ফেসপ্যাক তৈরি হয়ে গেলে মুখে মাখিয়ে ১০ মিনিট সময় অপেক্ষা করতে হবে। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলে মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে। সপ্তাহে একবারের জন্য এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করা যথেষ্ট।

আঙ্গুরের ফেসপ্যাক

এক মুঠো পরিমাণ অথবা ৫-৬ টি আঙ্গুর ভালোভাবে চটকে নিতে হবে। এর সাথে এক চা চামচ পরিমাণ অলিভ অয়েল যোগ করতে হবে। সম্পূর্ণ মুখে ভালোভাবে মিশ্রণটি মাখিয়ে ১০ মিনিট সময় অপেক্ষা করতে হবে। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিয়ে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। মাসে দুইবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

স্ট্রবেরি ফেসপ্যাক

১-২ টি স্ট্রবেরি ভালোভাবে চটকে নিতে হবে। এর সাথে এক চা চামচ পরিমাণ গোলাপজল মিশিয়ে মুখে মাখিয়ে রাখতে হবে ১০ মিনিট সময়ের জন্য। এরপর মুখ কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিয়ে পছন্দনীয় টোনার ব্যবহার করতে হবে। সপ্তাহে একবারের জন্য স্ট্রবেরি ফেসপ্যাক ব্যবহার ত্বকে কোমলতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

নাশপাতির ফেসপ্যাক

একটি পাকা নাশপাতি পুরোটা ভালোভাবে থেঁতো করে নিতে হবে। তার সাথে আধা চা চামচ পরিমাণ আমন্ড অয়েল মিশিয়ে নিতে হবে। পুরো মুখে খুব ভালোভাবে ফেসপ্যাক মাখিয়ে নিয়ে ১০-১৫ সময় পর্যন্ত রাখতে হবে। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। ত্বকে কাঙ্ক্ষিত কোমলতা তৈরি করতে প্রতি দুই সপ্তাহে এক-দুইবারের জন্য এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে হবে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *